জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান কার্যক্রম স্বল্পমেয়াদি : মেয়র তাপস

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে এখন যে কার্যক্রম চলছে সেটা স্বল্পমেয়াদি। বর্তমানে যে ধারণক্ষমতা আছে, যে অবকাঠামো আছে তা দিয়ে পানি প্রবাহ ঠিক রাখার চেষ্টা করছি। আমরা এ পর্যন্ত যতটুকু করেছি তাতে কিছু সুফল পাচ্ছি। একইসঙ্গে মধ্যমেয়াদি কার্যক্রমে আমাদের সফল হতে হবে এবং দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রম হাতে নিতে হবে।

বুধবার (৯ জুন) নগরীর যাত্রাবাড়ীর শহীদ শেখ রাসেল পার্ক উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ব্যাপক কর্মযজ্ঞ হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে আমাদের স্বল্পমেয়াদি কাজ হলো, স্তুপ আকারে যে বর্জ্য ছিল সেগুলো পরিষ্কার করা। যাতে পানি নিষ্কাশন ও পানি প্রবাহের সুযোগটা হয়। মধ্যমেয়াদি কিছু কার্যক্রম হাতে নিয়েছি আমরা, সেটা হলো, যেখানে অবকাঠামো উন্নয়ন প্রয়োজন, সেসব জায়গায় অবকাঠামো উন্নয়ন করা হবে।

তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে আমরা দরপত্র সম্পন্ন করেছি, আমাদের কাজ চলছে। প্রায় ১০৩ কোটি টাকার অবকাঠামো উন্নয়নের কার্যক্রম আমরা হাতে নিয়েছি। পরবর্তীতে হবে দীর্ঘমেয়াদি। আমরা মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করছি। সেটার আওতায় আমাদের দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রম হাতে নিতে হবে। সেটা হবে অত্যন্ত পরিকল্পিত। কারণ অপরিকল্পিতভাবে ঢাকা শহর গড়ে ওঠার কারণে বর্ষা মৌসুমে যে বৃষ্টি হয় তা ধারণ করার ক্ষমতা শহরের নেই। যে কারণে বৃষ্টি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।

ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থানে কোনোভাবেই ভবন নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না। প্রধানমন্ত্রীর এ ব্যাপারে নির্দেশনা আছে, সেটাও আমি সবার নজরে এনেছি। আশা করব, এখন পর্যন্ত যারা খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থান দখল করে বাড়ি ঘর নির্মাণ করেছেন দ্রুতই তা ছেড়ে দেবেন। ১১ নম্বর ওয়ার্ডে কোনো খেলার জায়গা নেই। সেখানকার বেদখল হওয়া জায়গা উদ্ধার করে খেলার মাঠ তৈরি করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যাত্রাবাড়ী মোড়ে শহীদ শেখ রাসেলের নামে আমরা এই পার্কটি উদ্বোধন করলাম। এখানে মনোরম একটি পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে। যাতে অত্র এলাকার মানুষজন মুক্ত জায়গায় আনন্দঘন সময় অতিবাহিত করতে পারে।

এর আগে তিনি নগরীর সিআইডি অফিস সংলগ্ন শান্তিনগরে অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্র (এসটিএস) উদ্বোধন, মালিবাগ মোড় থেকে চানমারি পর্যন্ত ওয়াসার নর্দমা পরিদর্শন এবং পরবর্তীতে কাজী আলাউদ্দীন সড়কের জলাবদ্ধতা নিরসন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডোর মো. বদরুল আমিন, প্রধান প্রকৌশলী রেজাউর রহমান, সচিব আকরামুজ্জামান, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কাজী মো. বোরহান উদ্দিন, মুন্সি মো. আবুল হাশেম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Check Also

ব্যারিস্টার সুমন বললেন ইভ্যালি-ধামাকা থেকে সতর্ক থাকতে

ইভ্যালি ও ধামাকাসহ ১০টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য ক্রয় ও টাকা লগ্নির ক্ষেত্রে সবাইকে সতর্ক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
www.jagrotojanata.com want to
Show notifications for the latest News&Updates