এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচন বন্ধে হাইকোর্টের রুল খারিজ

করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধে জারি করা রুল খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। রুল খারিজের ফলে লকডাউনেও এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে সাতদিনের মধ্যে যে জবাব দাখিল করার কথা ছিল সেটি সংশ্লিষ্টদের আর দাখিল করতে হবে না।

সাথে সাথে সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচনের যে প্রক্রিয়া চালু রয়েছে তাতে আর কোনো বাধা রইলো না বলে জাগো নিউজকে জানিয়েছেন আইনজীবী ব্যারিস্টার এইচ এম সানজিদ সিদ্দিকী।

রোববার (২ মে) হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ রুল খারিজ করে আদেশ দেন।

আদালতে আজ এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচন বোর্ডের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট শাহ মঞ্জরুল হক ও ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম। রিটের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান ও ব্যারিস্টার এইচ এম সানজিদ সিদ্দিকী।

ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম বলেন, ‘নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধে জারি করা রুল প্রত্যাহার করতে এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচনী বোর্ড ও এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্টের পক্ষে আবেদন করেছিলাম। আদালত শুনানি নিয়ে রুল খারিজ করে দিয়েছেন। এখন এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচন প্রক্রিয়া চালু রাখতে বাধা থাকলো না।’

এর আগে গত ২০ এপ্রিল করোনা পরিস্থিতিতে চলমান লকডাউনের মধ্যে এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধে কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ৭ এপ্রিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক নির্বাচন প্রক্রিয়া চলমান রাখার অনুচ্ছেদটি কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, রুলে সেটাও জানতে চাওয়া হয়। এই রুলের জবাব আর দিতে হবে না।

এফবিসিসিআইয়ের জেনারেল বডির এক সদস্যের দায়ের করা রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। পরে এই রুল প্রত্যাহার চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচনী বোর্ড ও এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট শেখ ফজলে ফাহিম।

গত ২০ এপ্রিল ব্যারিস্টার এইচ এম সানজিদ সিদ্দিকী বলেছিলেন, ‘গত ৭ এপ্রিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাণিজ্য সংগঠনের পরিচালক কর্তৃক ৭ এপ্রিল জারিকৃত নোটিশে বলা হয়, যে সকল বাণিজ্যিক সংগঠন তফসিল ঘোষণা করেছে তারা নির্বাচন প্রক্রিয়া চলমান রাখতে পারবে।’

করোনার মধ্যে নির্বাচন প্রক্রিয়া চালু রাখতে বাণিজ্য সংগঠনের পরিচালকের জারি করা এই নোটিশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন এফবিসিসিআইয়ের জেনারেল বডির সদস্য আমির উদ্দিন দিপু। এ ছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধ রাখতে তিনি একটি আবেদনও করেছিলে, সেটিও রিটে উল্লেখ করা হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
www.jagrotojanata.com want to
Show notifications for the latest News&Updates